মেসি ফ্রি’তে খেলতে চাইলেও নেবে না!

লিওনেল মেসিকে পাওয়ার জন্য ইউরোপের বড়
বড় সব ক্লাব বসে আছে হাত পেতে। অথচ
আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড ফ্রি’তে খেলতে
চাইলেও কিনা তাকে নেবে না তুরস্কের ক্লাব
আলতিনোর্দু!
বিশ্বাস হচ্ছে না তো? না হওয়াই স্বাভাবিক।
মেসির জন্য পাগল গোটা ফুটবল বিশ্ব।
প্রতিপক্ষের কোচদের মুখ থেকে পর্যন্ত এমন
খেলোয়াড়কে না পাওয়ার আফসোস ঝরে। যার
সঙ্গে খেলতে পারলে ফুটবল ক্যারিয়ার ধন্য মনে
করেন অনেক খেলোয়াড়, যার কোচ হওয়াটা
অনেকের কাছে স্বপ্ন পূরণের মতো, সেই
ফুটবল বিস্ময়কে দলে না নেওয়ার স্পষ্ট
ঘোষণা তো বিস্ময় ছড়াবেই।
টারকিশ ক্লাব আলতিনোর্দুর চেয়ারম্যান
মেহমিত সেয়িত ওজকানের অবশ্য মেসিকে দলে
না চাওয়াটা অন্য কারণে। তার ক্লাবের নীতিগত
বিষয় ভাঙতে চান না বলেই বিশ্বসেরা
খেলোয়াড়েও দলে নিতে আপত্তি তার। আসলে
তুরস্কের দ্বিতীয় বিভাগে খেলা এই দলটির সব
খেলোয়াড়ই দেশের। তাদের দলে বিদেশিদের
জায়গা নেই কোনও। তা ছাড়া ২১ উর্ধ্ব
খেলোয়াড়কে খেলানোর কোনও পরিকল্পনাও
নেই আলতিনোর্দুর। এ জন্যই মেসি ফ্রিতে এই
ক্লাবে খেলতে চাইলেও তাকে নেবে না তারা।
টারকিশ ক্লাবের ওয়েবসাইটে ওজকান বলেছেন,
‘এমনকি যদি মেসি আলতিনোর্দুর হয়ে ফ্রিতে
খেলতে চান, তবু আমি নিশ্চিতভাবে তা
প্রত্যাখান করব। আমার পুরোপুরি বিশ্বাস
আছে আমাদের তরুণ টারকিশ খেলোয়াড়দের
ওপর। ওদের আমি সুযোগ দিতে চাই।’
নিজেদের যুব একাডেমিতে খেলোয়াড় তৈরি
করেছে আলতিনোর্দু। নতুন প্রজন্মের হাতে
ভবিষ্যতের মশাল তুলে দেওয়া এই ক্লাবটির
পুরোপুরি বিশ্বাস আছে তাদের খেলোয়াড়দের
ওপর, যাদের কারও বয়সই আবার ২১-এর বেশি
নয়। তাদের ওপর আস্থা রেখে ক্লাবের
সাফল্যের নকশাও তৈরি করে রেখেছেন ওজকান,
‘আমার লক্ষ্য এখন সুপার লিগ (তুরস্কের
ঘরোয়া শীর্ষ লিগ) এবং ২০২৩ সালে
ইউরোপিয়ান কাপে (চ্যাম্পিয়নস লিগ) খেলা,
যখন আমাদের ক্লাবের শতবর্ষ পূর্ণ হবে।’
নিজেদের এই লক্ষ্যের পথে নীতিশাস্ত্রের ওপর
কোনও রকম আঘাত দিতে চায় না
আলতিনোর্দু, সেটা এমনকি বিশ্বসেরা
খেলোয়াড়কে পেলেও না। দেখা যাক, এই দৃঢ়
মনোভাব কতদূর নিয়ে যায় তাদের।

About bipul 5693 Articles
Love is Life

Be the first to comment

Leave a Reply